Thursday 19th of July 2018 09:18:54 AM
 
  Top News:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণহারে দ্বিতীয়, তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে----মো:নাসির  |  দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ৫টি সহজ উপায়  |  ৫ মিনিটের কম সময়ে এসিডিটির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়  |  Beat Diabetes: 4 Ways to Prevent Type 2 Diabetes  |  নারীদের সফলতার পেছনে রয়েছে এই ৩টি কারণ  |  পাঁচ বদভ্যাসে ক্ষুধা নষ্ট  |  এই খাবারগুলো খালি পেটে খাবেন না  |  রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার এ কারণটি জানেন কি?  |  কম খরচে বিদেশ ভ্রমণে এশিয়ার সেরা ৭  |  শুধু ছেলেরাই নয়, মেয়েদেরকেও দিতে হবে প্রেমের প্রস্তাব   |  উৎকৃষ্ট সব অভ্যাস যাতে মেলে সুখ  |  যে ৪টি কারণে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যায়  |  মেঘদূত - জেবু নজরুল ইসলাম  |  3 Things Not To Say To Your Toddler  |   Men lose their minds speaking to pretty women  |  Lessons From a Marriage  |  চুইং গামে কী রয়েছে জানেন কি?  |  নিজেই তৈরি করে নিন দারুচিনি দিয়ে মাউথ ওয়াশ  |  সুস্থ থাকুন বৃষ্টি-বাদলায়  |  অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি সামলে উঠুন ৪টি উপায়ে  |  
 
 

পুলিশ 'সাফল্য' দাবি করছে, কিন্তু চার্জশিট মাত্র ৬টি

May 4, 2016, 10:38 PM, Hits: 593

 

এনজেবিডি নিউজ : বাংলাদেশের পুলিশ মহাপরিদর্শক এ কে এম শহিদুল হক দাবি করেছেন, গত তিন বছর বাংলাদেশে যে ৩৭টি জঙ্গী হামলা হয়েছে, তার ৩৪টিতেই পুলিশ মুল ঘটনা উদঘাটন করতে পেরেছে।

ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে এটাকে তাদের সাফল্য হিসেবে বর্ননা করে তিনি বলেছেন, রহস্য উদঘাটন মানে আসামী গ্রেফতার, দায়ী ব্যক্তিদের সনাক্তকরণ, অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার, আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী - এগুলোই বোঝানো হচ্ছে।

তিনি বলেন "এরপরও কেউ কেউ পুলিশের অর্জনকে ব্যর্থ প্রমাণ করতে চাইছে।"

তবে মি. হকের দেয়া তথ্যমতেই এ পর্যন্ত মাত্র ছয়টি ঘটনায় চার্জশিট দেয়া হয়েছে। নিম্ন আদালতে বিচার প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে একটি মাত্র ঘটনার - যেটি হলো ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার হত্যাকান্ড।

একের পর এক জঙ্গী হামলার প্রেক্ষাপটে পুলিশের সামর্থ্য এবং আন্তরিকতা নিয়ে যখন প্রশ্ন উঠছে তখনই এই সংবাদ সম্মেলন। মি. হক জঙ্গী হামলার ঘটনাগুলোর মামলা কোনটি কি অবস্থায় আছে তা তুলে ধরে দাবি করলেন, ৯০ ভাগ ঘটনার কারণ পুলিশ সনাক্ত করেছে।

Image caption অনেক হত্যাকান্ডের মধ্যে চার্জশিট মাত্র ৬টি

কিন্তু দেশটির মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, জড়িতদের সনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না বলেই পুলিশ চার্জশিট দিতে পারছে না।

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নূর খান লিটন বলছেন, চার্জশিট না দেয়াতে বোঝা যায় যে পুলিশ ধারণার ভিত্তিতে এগুচ্ছে। যদি অপরাধী চিহ্নিতই হয়ে থাকে তাহলে চার্জশিট দিতে পারছে না কেন?

"কোন কোন ক্ষেত্রে এমন হচ্ছে যে সন্দেহভাজন হিসেবে কেউ আটক হলেও পরে সে জামিন নিয়ে বেরিয়ে আসছে, কারণ পুলিশ সন্দেহাতীতভাবে তা চিহ্নিত করতে পারে নি।" বলেন মি. খান।

গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তা আবদুল বাতেন অবশ্য দাবি করছেন যে তদন্তে সময় লাগছে বলেই চার্জশিট দিতে দেরি হচ্ছে।

নিহতদের পরিবারের সদস্যরা বলছেন হত্যাকারীদের চিহ্নিত করতে পুলিশ ব্যর্থ হচ্ছে বলেই হত্যাকান্ড বন্ধ করা যাচ্ছে না।

কিন্তু পুলিশ প্রধান শহিদুল হক বলছেন, পুলিশের তৎপরতা না থাকলে হয়তো এসব টার্গেট করে হত্যাকান্ড আরো বেশি হতো।