Saturday 16th of December 2017 07:36:47 PM
 
  Top News:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণহারে দ্বিতীয়, তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে----মো:নাসির  |  দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ৫টি সহজ উপায়  |  ৫ মিনিটের কম সময়ে এসিডিটির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়  |  Beat Diabetes: 4 Ways to Prevent Type 2 Diabetes  |  নারীদের সফলতার পেছনে রয়েছে এই ৩টি কারণ  |  পাঁচ বদভ্যাসে ক্ষুধা নষ্ট  |  এই খাবারগুলো খালি পেটে খাবেন না  |  রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার এ কারণটি জানেন কি?  |  কম খরচে বিদেশ ভ্রমণে এশিয়ার সেরা ৭  |  শুধু ছেলেরাই নয়, মেয়েদেরকেও দিতে হবে প্রেমের প্রস্তাব   |  উৎকৃষ্ট সব অভ্যাস যাতে মেলে সুখ  |  যে ৪টি কারণে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যায়  |  মেঘদূত - জেবু নজরুল ইসলাম  |  3 Things Not To Say To Your Toddler  |   Men lose their minds speaking to pretty women  |  Lessons From a Marriage  |  চুইং গামে কী রয়েছে জানেন কি?  |  নিজেই তৈরি করে নিন দারুচিনি দিয়ে মাউথ ওয়াশ  |  সুস্থ থাকুন বৃষ্টি-বাদলায়  |  অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি সামলে উঠুন ৪টি উপায়ে  |  
 
 

আসলামের গ্রেপ্তারে চটেছেন সাফাদি

May 18, 2016, 2:55 AM, Hits: 301

 

এনজেবিডি নিউজ :  ইসরায়েলি গুপ্তচরদের সঙ্গে বৈঠক এবং সরকার উত্খাতের ষড়যন্ত্রের অভিযোগে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করায় চটেছেন ইসরায়েলের লিকুদ পার্টির প্রভাবশালী সদস্য মেন্দি এন সাফাদি ও তাঁর বাংলাদেশি বন্ধু শিপন কুমার বসু। বিশেষ করে বাংলাদেশের কোনো কোনো সংবাদমাধ্যমে তাঁদের ‘গুপ্তচর’ তকমা দেওয়ায় তাঁরা বিস্মিত। তবে উভয়েই বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা এবং সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সুরক্ষা ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার করেছেন আলাদাভাবে।

জেরুজালেম অনলাইন ডটকমকে দেওয়া এক প্রতিক্রিয়ায় সাফাদি বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটকে (আইএস) প্রশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ তুলে বলেছেন, এ ধরনের সরকারের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক সম্প্রদায়ের অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

সাফাদি গত সোমবার দাবি করেন, অসাংবিধানিক কোনো উপায়ে সরকার উত্খাতের কোনো পরিকল্পনা তাঁর নেই। তবে এ দাবি তাঁর আগের বক্তব্যের উল্টো। গত ২৬ জানুয়ারি ইসরায়েলের জেরুজালেম অনলাইন ডটকমে প্রকাশিত ‘ভারতে সাফাদি : শিগগিরই ইসরায়েলিদের জন্য বাংলাদেশের দরজা খুলে যাবে’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, সাফাদি সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল ডিপ্লোমেসি অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনসের (সাফাদি সেন্টার) প্রধান মেন্দি এন সাফাদি বাংলাদেশে বর্তমান সরকার উত্খাত করার লক্ষ্যে এবং নতুন একটি সরকারের পক্ষে কাজ করছেন, যাতে ওই সরকার ইসরায়েলের সঙ্গে বাংলাদেশের পূর্ণ কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার বিষয়টি সমর্থন করে। সাফাদি সেখানে বলেছিলেন, ‘শিগগিরই বাংলাদেশের দরজাগুলো সব ক্ষেত্রেই ইসরায়েলিদের জন্য উন্মুক্ত হবে এবং এটি কোনো অসম্ভব প্রত্যাশা নয়।’

অথচ বিবিসি বাংলাকে গত সোমবার মেন্দি বলেন, ‘বাংলাদেশের পরিস্থিতি, সেখানে সংখ্যালঘুদের অবস্থা—এগুলো সবাই জানেন। আমরা দুজনে সেসব নিয়েই কথা বলেছি, তাও সেটি একটি প্রকাশ্য অনুষ্ঠানে। আমরা দুজনে বাংলাদেশে সামরিক অভ্যুত্থানের পরিকল্পনা করছিলাম বা সরকারের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছিলাম—এর চেয়ে হাস্যকর আর কিছু হতেই পারে না।’ তাঁর সাম্প্রতিক ভারত সফরের সময় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীর সঙ্গে দেখা হওয়ার কথা অবশ্য তিনি স্বীকার করেন।

ভারত সফরকালে শিপন কুমার বসু নামে যে ব্যক্তির সঙ্গে পরিচয়ের সূত্র ধরে লিকুদ পার্টির নেতা মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়েছেন বলে আসলাম চৌধুরী দাবি করেছেন, সেই শিপন কুমার বসু ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থার এজেন্ট বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এর পাশাপাশি মেন্দি এন সাফাদির মোসাদ সংশ্লিষ্টতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। তবে তাঁরা দুজনই তাঁদের মোসাদ সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ নাকচ করেছেন।

সরকারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পদক্ষেপ চান সাফাদি : সাফাদি সেন্টারের ফেসবুক পেজে গত সোমবার জেরুজালেম অনলাইনে প্রকাশিত ‘সাম্প্রতিক দিনগুলোতে বাংলাদেশি বিরোধী নেতাদের গণগ্রেপ্তার’ শীর্ষক এক নিবন্ধের লিংক রয়েছে। বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দু ও মানবাধিকার কর্মীরা অব্যাহতভাবে নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন এবং ক্ষমতাসীন সরকার আইএসকে প্রশ্রয় দিচ্ছে বলে উল্লেখ করা হয় ওই নিবন্ধে। সেখানে সাফাদি বাংলাদেশ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আইসিসের (আইএস) মতো চিহ্নিত সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে যখন কোনো সরকার আশ্রয় দেয়, তখন তার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অবশ্যই কাজ করা উচিত এবং বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে জাতিগত নির্মূল করার প্রক্রিয়া থামানো উচিত।’

সাফাদি বলেন, ‘আমি পাবলিক রিলেশনস ও আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে সম্পৃক্ত, গুপ্তচর বৃত্তিতে নই।’ মোসাদের সম্পৃক্ততার অভিযোগকে তিনি বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও ন্যায়বিচার ফিরিয়ে আনতে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে রাজনৈতিক তৎপরতা প্রতিরোধ এবং দেশের ভেতর বিরোধীদের দমনের চেষ্টা হিসেবে তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মানবাধিকার কর্মীদের স্তব্ধ করে দিতেই গুপ্তচর বৃত্তির অভিযোগে তাঁকে (আসলাম) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এটি বাংলাদেশি সরকারের একনায়কোচিত পন্থা এবং এটি ন্যায়বিচার ও গণতন্ত্রের ব্যাপারে তাদের প্রত্যাশাকে থামাতে পারবে না। তিনি আরো বলেন, মানবাধিকারকর্মী ইসলাম সোহাদ্রী, শিপন কুমার বসু ও বিবেক দেবকে সরকারের বিরুদ্ধে কাজের জন্য হুমকি দেওয়া হয়েছে।

ইসরায়েলের সহযোগিতা চাওয়ার কথা স্বীকার শিপনের : শিপন কুমার বসু তাঁর ফেসবুক অ্যাকাউন্টে নিজের পরিচয় দিয়েছেন ‘ইন সার্চ অব রুটস’ নামের একটি সংগঠনের অ্যাসিস্ট্যান্ট ওয়ার্কিং প্রেসিডেন্ট হিসেবে। এ সংগঠনটি সাফাদি সেন্টার এবং ইন্টারফেইথ স্ট্র্যাংথের সঙ্গে কাজ করে। শিপন কুমার বসু জেরুজালেম অনলাইনের কাছে দাবি করেন, বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের আমলে হিন্দুদের ওপর নিপীড়ন ও জমি দখলের বিরুদ্ধে তাঁর ও তাঁর সহকর্মীদের সংগ্রাম নিয়ে বাংলাদেশি গণমাধ্যমে অপপ্রচার চলছে। তিনি বলেন, ‘আমি যদি কারো এজেন্ট হয়ে থাকি, সেটি আমার প্রিয় দেশ বাংলাদেশের ও আমার হিন্দু সম্প্রদায়ের।’

শিপন আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ ও আমার হিন্দু সম্প্রদায়ের ভালোর জন্য, আমি ভারতীয়, ইসরায়েলি, ইউরোপীয়, আমেরিকান, ব্রিটিশসহ অনেকের কাছে সহযোগিতা চেয়েছি। আমাদের কোনো গোপন কর্মকাণ্ড নেই। আমরা যা করছি তা আমাদের ফেসবুকে স্টেটাসে প্রকাশ করছি। ইসরায়েলের ক্ষমতাসীন লিকুদ পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা মেন্দি সাফাদি আমার ফেসবুক বন্ধু এবং আমার লক্ষ্য পূরণে যখন আমি সহযোগিতার জন্য তাঁকে অনুরোধ করি, তখন তিনি ইতিবাচকভাবে সাড়া দেন। এভাবেই আমাদের সহযোগিতার শুরু। আমরা চাই না, বাংলাদেশের মুসলমানরা তাদের হিন্দু প্রতিবেশীদের শত্রু হয়ে উঠুক; আবার একইভাবে বাংলাদেশের হিন্দুরা সংখ্যালঘু মুসলমানদের দয়ায় বাঁচুক।’

শিপন কুমার বসু বলেন, অধ্যাপক আবুল বারাকাতের সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানেই নিশ্চিত হয়েছে যে ক্ষমতাসীন দলই সংখ্যালঘুদের সম্পত্তি সবচেয়ে বেশি দখল করছে। তিনি বলেন, ‘এটি এক কঠিন বাস্তবতা। আমাদের অবশ্যই পরিস্থিতি শুধরাতে হবে।’

শিপন দাবি করে বলেন, ‘মেন্দি সাফাদির সঙ্গে আমাদের বৈঠকে কোনো বাংলাদেশি সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন না। কোনো ইসরায়েলি সংস্থার কাছ থেকে আমরা কোনো তহবিল পাই না। বরং আমরা আমাদের কাজের জন্য তহবিল বাংলাদেশ থেকেই সংগ্রহ করি। অসাংবিধানিক কোনো উপায়ে বাংলাদেশের বর্তমান সরকার উত্খাতের কোনো পরিকল্পনা আমাদের নেই।’ তিনি বলেন, তাঁরা বাংলাদেশি জনগণের নাগরিক স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে চান।

কার লবিস্ট সাফাদি : গত বছরের ২৯ জুন জেরুজালেম অনলাইনে প্রকাশিত ‘উপমন্ত্রী আয়ুব কারার উপদেষ্টা বাংলাদেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করছেন’ শীর্ষক প্রতিবেদনে সাফাদি নিজেই স্বীকার করেছেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা ও নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে তিনি ইউরোপে অবস্থানরত বাংলাদেশি ‘বিরোধীদের’ লবিস্ট হিসেবে কাজ করছেন।

জেরুজালেম অনলাইনের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘সাফাদি উল্লেখ করেন যে বাংলাদেশি বিরোধীদের গুরুত্বপূর্ণ অংশ ইউরোপে চলে যেতে বাধ্য হয়েছে। কারণ তাদের জন্য বাংলাদেশে অবস্থান বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে।’

সাফাদি বলেন, ‘তাঁরা চায় আমি একটি নির্বাচনের জন্য তদবির করি, যে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবে জাতিসংঘ। এ কারণেই তাঁরা আমাকে ভারতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। কারণ ইসরায়েলি হিসেবে আমি বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারি না। আন্তর্জাতিক একজন লবিস্ট এবং ব্যক্তিগত কাজ হিসেবে আমি তাঁদের জন্য নতুন নির্বাচন ও দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে কাজ করছি। যখন তাঁরা গণতন্ত্র ফেরানোর কাজে সফল হবেন, তখন তাঁরা ইসরায়েলের সঙ্গে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের কথা বলবেন।’

আলোচনায় ‘মিস্টার রহমান’ : একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত ফুটেজে দেখা যায়, বাংলাদেশ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে মেন্দি এন সাফাদি লন্ডনে ‘মিস্টার রহমান’ নামে একজনের সঙ্গে বৈঠকের কথা তিনবার বলেছেন। কে এই ‘মিস্টার রহমান’ তা উদ্ঘাটন করতে কাজ করছে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা। জেরুজালেম অনলাইনে প্রকাশিত ‘উপমন্ত্রী আয়ুব কারার উপদেষ্টা বাংলাদেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করছেন’ শীর্ষক প্রতিবেদনেও (২৯ জুন, ২০১৫) মেন্দি এন সাফাদির উদ্ধৃতিতে একজন রহমানের কথা উল্লেখ রয়েছে। ভারতে ইসরায়েলি অনেক ব্যবসায়ীর সঙ্গে সাক্ষাতের কথা তুলে ধরে সাফাদি বলেন, ‘আমি তাঁদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁরা আমাকে বলেছেন, গত বছর ইসরায়েল ও ভারতের মধ্যে ব্যবসায়িক সম্পর্ক জোরদার হয়েছে। আমার মনে হয়, বাংলাদেশে যখন গণতান্ত্রিক নির্বাচন হবে এবং সরকার বদলাবে, মিস্টার রহমান ভারতীয়দের সঙ্গে নিয়ে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে কাজ করবেন। আর তাঁরা এখন আমাকে বলছেন, যদি ইসরায়েলি কিছু ব্যবসায়ীর কাছে অন্য কোনো (ইসরায়েল ছাড়া অন্য কোনো দেশের) পাসপোর্ট থাকে তবে তাঁরা বাংলাদেশে ঢুকতে পারবেন। অন্য কোনো দেশের পাসপোর্ট থাকলে ইসরায়েলিরা কাতার ও উপসাগরীয় দেশগুলোতেও কাজ করতে পারেন।’

ফিলিস্তিন দূতাবাসের ব্যাখ্যা : গতকাল মঙ্গলবার কালের কণ্ঠ’র প্রথম পৃষ্ঠায় ‘কালের কণ্ঠকে ফিলিস্তিনি দূত : ঘণ্টাব্যাপী সেই বৈঠক কেবল চা খাওয়ার জন্য ছিল না’ শীর্ষক প্রতিবেদনের ব্যাখ্যায় ঢাকায় ফিলিস্তিন দূতাবাস বলেছে, আসলাম চৌধুরীর সঙ্গে ভারতে বৈঠকে অংশগ্রহণকারী ইসরায়েলের প্রতিনিধি মোসাদের এজেন্ট কি না সে বিষয়ে ঢাকায় ফিলিস্তিনি চার্জ দি অ্যাফেয়ার্স (সিডিএ) ইউসেফ এস ওয়াই রামাদানের কোনো মন্তব্য নেই। দূতাবাস মনে করে, তদন্ত সংস্থাগুলোই ওই ব্যক্তির পরিচয় বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারে।