Monday 18th of December 2017 03:52:16 AM
 
  Top News:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণহারে দ্বিতীয়, তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে----মো:নাসির  |  দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ৫টি সহজ উপায়  |  ৫ মিনিটের কম সময়ে এসিডিটির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়  |  Beat Diabetes: 4 Ways to Prevent Type 2 Diabetes  |  নারীদের সফলতার পেছনে রয়েছে এই ৩টি কারণ  |  পাঁচ বদভ্যাসে ক্ষুধা নষ্ট  |  এই খাবারগুলো খালি পেটে খাবেন না  |  রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার এ কারণটি জানেন কি?  |  কম খরচে বিদেশ ভ্রমণে এশিয়ার সেরা ৭  |  শুধু ছেলেরাই নয়, মেয়েদেরকেও দিতে হবে প্রেমের প্রস্তাব   |  উৎকৃষ্ট সব অভ্যাস যাতে মেলে সুখ  |  যে ৪টি কারণে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যায়  |  মেঘদূত - জেবু নজরুল ইসলাম  |  3 Things Not To Say To Your Toddler  |   Men lose their minds speaking to pretty women  |  Lessons From a Marriage  |  চুইং গামে কী রয়েছে জানেন কি?  |  নিজেই তৈরি করে নিন দারুচিনি দিয়ে মাউথ ওয়াশ  |  সুস্থ থাকুন বৃষ্টি-বাদলায়  |  অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি সামলে উঠুন ৪টি উপায়ে  |  
 
 

চিকিৎসকের অবহেলার শাস্তি ৫ বছর কারাদণ্ড

May 24, 2016, 8:50 PM, Hits: 306

 
এনজেবিডি নিউজ : চিকিৎসকের অবহেলায় কোনো রোগীর মৃত্যু হলে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে মামলা করা যাবে। এ বিধান রেখে বেসরকারি চিকিৎসাসেবা
আইনের খসড়া প্রায় চূড়ান্ত করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ ক্ষেত্রে দোষী সাব্যস্ত হলে বাংলাদেশ দণ্ডবিধির ৩০৪(ক) ধারা অনুযায়ী অভিযুক্ত চিকিৎসককে দণ্ড দিতে পারবেন আদালত। এ ধারা অনুযায়ী পাঁচ বছর কারাদণ্ড অথবা অর্থদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক। বর্তমানে এ সংক্রান্ত যে অধ্যাদেশ কার্যকর আছে, সেখানে চিকিৎসককে শাস্তি দেয়ার কোনো বিধান নেই। প্রস্তাবিত আইনের খসড়ায় আরও বলা হয়েছে, সরকার সময়ে সময়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসক ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফিস বা চার্জ নির্ধারণ করবে। এ ক্ষেত্রে নির্ধারিত চার্জের তালিকা দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন করতে হবে। সেবা বাবদ আদায়কৃত চার্জ বা মূল্য রসিদের মাধ্যমে গ্রহণ করতে হবে এবং অনুলিপি সংরক্ষণ করতে হবে। কেউ সরকার নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত আদায় করলে কমপক্ষে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করতে পারবে কর্তৃপক্ষ।
এ ছাড়া একজন চিকিৎসকের চেম্বার ন্যূনতম দুই কক্ষবিশিষ্ট থাকা বাঞ্ছনীয় বলে উল্লেখ করে খসড়ায় বলা হয়, সেখানে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি থাকতে হবে। অনুমোদিত সার্টিফিকেট কোর্স বা ডিপ্লোমা ডিগ্রি ছাড়া অন্য কোনো যোগ্যতার বিবরণ ভিজিটিং কার্ডে বা সাইনবোর্ডে উল্লেখ করা যাবে না।
আইনের খসড়া অনুযায়ী, বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইন কার্যকর হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে সব বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানকে নির্ধারিত শর্ত ও পদ্ধতিতে লাইসেন্স নিতে হবে। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হবে। এ ছাড়া বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সদস্য ও দরিদ্র রোগীদের সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা দেয়া নিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি তাদের জন্য ১০ ভাগ শয্যা সংরক্ষণের বিধান রাখা হয়েছে খসড়ায়। এ মুহূর্তে পাঁচ ভাগ শয্যা সংরক্ষণের ব্যবস্থা আছে বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জনা গেছে, সম্প্রতি বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইনের একটি খসড়া প্রায় চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনসহ (বিএমএ) সংশ্লিষ্ট সবার মতামত নেয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম মঙ্গলবার যুগান্তরকে বলেন, চলতি মাসের ৩১ তারিখের মধ্যে প্রস্তাবিত আইনের খসড়াটি চূড়ান্ত করা হবে। এর পরপরই অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় পাঠানো হবে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আইনটি কার্যকর হলে রোগীদের জন্য মানসম্মত সেবা নিশ্চিত হওয়ার পাশাপাশি চিকিৎসাসেবা প্রদানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদেরও আইনগত অধিকার সুরক্ষিত হবে। চিকিৎসাসংক্রান্ত কাজের অনিয়ম ও অবহেলা দূর হবে। পাশাপাশি যে কোনো ধরনের অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা রোধে আইনটি বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। প্রস্তাবিত আইনের খসড়ায় উল্লেখ করা হয়, সরকারি চিকিৎসকসহ সেবাদানকারী কেউ অফিস সময়ে বেসরকারিভাবে চিকিৎসাসেবা প্রদান করতে পারবেন না। এই বিধি লংঘন করলে কমপক্ষে এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড অথবা ছয় মাসের কারাদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন দোষী ব্যক্তি।
গত দু’দশকে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে কয়েক হাজার বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান। স্বাস্থ্য অধিদফতরের ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেম (এমআইএস) প্রণীত হেলথ বুলেটিন ২০১৪-এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী বর্তমানে দেশে বৈধ রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত ২ হাজার ৯৮৩টি হাসপাতাল ও ক্লিনিক এবং ৫ হাজার ২২০টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। সংশ্লিষ্টদের মতে, অবৈধভাবে গড়ে ওঠা হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সংখ্যা বৈধ সংখ্যার চেয়েও অনেক বেশি। তবে এসব বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মান নিয়ন্ত্রণে যুগোপযোগী আইন নেই।
জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানান, বেসরকারি খাতের এতসংখ্যক প্রতিষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য দেশে উপযুক্ত আইন নেই। বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইন প্রণয়নে বেশ কয়েকবার উদ্যোগ নেয়া হলেও নীতিনির্ধারকদের অনেকের স্বার্থ বিঘ্নিত হতে পারে- এমন আশংকায় আইনটি অদ্যাবধি আলোর মুখ দেখেনি।
৩৪ বছরের পুরনো ‘দ্য মেডিকেল প্র্যাকটিস অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিকস অ্যান্ড ল্যাবরেটরিজ (রেগুলেশনস) অর্ডিন্যান্স, ১৯৮২’-এর অধীনে বর্তমানে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালিত হয়। স্বাস্থ্য অধিদফতরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখার সংশ্লিষ্টরা জানান, বিজ্ঞানের অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে ছোট-বড় হাসপাতালে বিভিন্ন বিশেষায়িত (আইসিইউ, সিসিইউ, এনআইসিইউ) চিকিৎসাসেবা ও উন্নতমানের চিকিৎসা সরঞ্জামাদি স্থাপন করা হচ্ছে। এই পুরনো অধ্যাদেশ দিয়ে কোনোভাবেই এসব প্রতিষ্ঠানের মনিটরিং ও সুপারভিশন সম্ভব নয়।
অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, বিগত এক বছরে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে দেড় শাতাধিক হাসপাতালে জরিমানা করেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গেছে, হাসপাতালগুলোর নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ), করনারি কেয়ার ইউনিট (সিসিইউ), এইচডিইউ, এনআইসিইউ, ডায়ালিসিস ইত্যাদি বিভাগের লাইসেন্স নেই। এমনকি ক্লিনিক এবং ল্যাবের লাইসেন্সও মেয়াদ উত্তীর্ণ। এ ছাড়া হাসপাতাল ফার্মেসিগুলোতে মেডিকেল ডিভাইস ও সার্জিক্যাল অ্যাপেরাটাসের ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন রেজিস্ট্রেশন (ডিএআর) এবং প্রেমিসেস লাইসেন্স নেই। এমনকি এসব প্রতিষ্ঠানে ব্লাড ব্যাংকের লাইসেন্স থাকে না।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, ২০০৪ সালে তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইনটি জাতীয় সংসদে উত্থাপিত হওয়ার শেষ মুহূর্তে ফেরত আসে। এরপর ড. ফখরুদ্দীন আহমেদের নেতৃত্বাধীন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আইনটি প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের ২০০৯ থেকে ২০১৪ সালের প্রথম দফার শাসনামলে আইনটি খসড়া প্রণীত হয়। কিন্তু কোনো এক অদৃশ্য কারণে তা আর আলোর মুখ দেখেনি।
অভিযোগ রয়েছে, বেশিরভাগ বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারই চলছে ‘ফ্রি স্টাইলে’। এগুলোর অধিকাংশরই মালিকানার সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদ ও চিকিৎসক নেতারা জড়িত। ফলে আইন প্রণয়ন বিভিন্ন সময় বাধাগ্রস্ত হয়েছে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে শয্যা বাড়ানো থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও অস্ত্রোপচার বাবদ অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে বেসরকারি সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো।
এ ছাড়া স্বাস্থ্য অধিদফতরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখা থেকে লাইসেন্স প্রদান করা হলেও প্রয়োজনীয় জনবল সংকটের দোহাই দিয়ে সিংহভাগ প্রতিষ্ঠানই পরিদর্শন করা হয় না। ফলে সাধারণ রোগীদের অহেতুক গুনতে হচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা। অভিযোগ রয়েছে, সরকারের সংশ্লিষ্টদের বিভিন্নভাবে ‘ম্যানেজ’ করে নির্বিঘেœ যাবতীয় অবৈধ কার্যক্রম পরিচালনা করছে অধিকাংশ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার।
জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) অধ্যাপক ডা. শামিউল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, রোগী ও ডাক্তার উভয়ের নিরাপত্তায় একটি যুগোপযোগী আইন প্রয়োজন। আইন অপরাধ প্রশমন করে। তবে অবশ্যই রোগী ও চিকিৎসকবান্ধব হতে হবে।
সামগ্রিক বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিকার আন্দোলন জাতীয় কমিটির সভাপতি ও বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ডা. রশীদ-ই মাহবুব যুগান্তরকে বলেন, বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইন প্রণয়নে বিভিন্ন সরকারের আমলে উদ্যোগ নেয়া হলেও বাস্তবায়ন হয়নি। খসড়া আইনটি প্রণীত হলেও বহু মাস ধরে তা মন্ত্রণালয়ে পড়ে আছে। তবে এ মাসে যদি এটি মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয় তবে ভালো কথা। খসড়া আইনের বিভিন্ন বিষয়ে মতামত প্রদান না করলেও মুক্তিযোদ্ধা ও দরিদ্র রোগীদের বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা প্রদানের বিষয়টি তিনি আরও সুনির্দিষ্ট করার প্রয়োজন বলে মনে করেন। কারণ কনসালটেন্ট ফিস, অপারেশন চার্জ, অ্যানেসথেশিয়া চার্জ ইত্যাদি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বহন করতে হবে কিনা সে বিষয়টি স্পষ্ট করতে হবে।
  

চিকিৎসকের
অবহেলায় কোনো রোগীর মৃত্যু হলে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে মামলা করা যাবে। এ বিধান রেখে বেসরকারি চিকিৎসাসেবা
আইনের খসড়া প্রায় চূড়ান্ত করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ ক্ষেত্রে দোষী সাব্যস্ত হলে বাংলাদেশ দণ্ডবিধির ৩০৪(ক) ধারা অনুযায়ী অভিযুক্ত চিকিৎসককে দণ্ড দিতে পারবেন আদালত। এ ধারা অনুযায়ী পাঁচ বছর কারাদণ্ড অথবা অর্থদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক। বর্তমানে এ সংক্রান্ত যে অধ্যাদেশ কার্যকর আছে, সেখানে চিকিৎসককে শাস্তি দেয়ার কোনো বিধান নেই। প্রস্তাবিত আইনের খসড়ায় আরও বলা হয়েছে, সরকার সময়ে সময়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসক ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফিস বা চার্জ নির্ধারণ করবে। এ ক্ষেত্রে নির্ধারিত চার্জের তালিকা দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন করতে হবে। সেবা বাবদ আদায়কৃত চার্জ বা মূল্য রসিদের মাধ্যমে গ্রহণ করতে হবে এবং অনুলিপি সংরক্ষণ করতে হবে। কেউ সরকার নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত আদায় করলে কমপক্ষে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করতে পারবে কর্তৃপক্ষ।
এ ছাড়া একজন চিকিৎসকের চেম্বার ন্যূনতম দুই কক্ষবিশিষ্ট থাকা বাঞ্ছনীয় বলে উল্লেখ করে খসড়ায় বলা হয়, সেখানে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি থাকতে হবে। অনুমোদিত সার্টিফিকেট কোর্স বা ডিপ্লোমা ডিগ্রি ছাড়া অন্য কোনো যোগ্যতার বিবরণ ভিজিটিং কার্ডে বা সাইনবোর্ডে উল্লেখ করা যাবে না।
আইনের খসড়া অনুযায়ী, বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইন কার্যকর হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে সব বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানকে নির্ধারিত শর্ত ও পদ্ধতিতে লাইসেন্স নিতে হবে। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হবে। এ ছাড়া বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সদস্য ও দরিদ্র রোগীদের সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা দেয়া নিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি তাদের জন্য ১০ ভাগ শয্যা সংরক্ষণের বিধান রাখা হয়েছে খসড়ায়। এ মুহূর্তে পাঁচ ভাগ শয্যা সংরক্ষণের ব্যবস্থা আছে বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জনা গেছে, সম্প্রতি বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইনের একটি খসড়া প্রায় চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনসহ (বিএমএ) সংশ্লিষ্ট সবার মতামত নেয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম মঙ্গলবার যুগান্তরকে বলেন, চলতি মাসের ৩১ তারিখের মধ্যে প্রস্তাবিত আইনের খসড়াটি চূড়ান্ত করা হবে। এর পরপরই অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় পাঠানো হবে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আইনটি কার্যকর হলে রোগীদের জন্য মানসম্মত সেবা নিশ্চিত হওয়ার পাশাপাশি চিকিৎসাসেবা প্রদানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদেরও আইনগত অধিকার সুরক্ষিত হবে। চিকিৎসাসংক্রান্ত কাজের অনিয়ম ও অবহেলা দূর হবে। পাশাপাশি যে কোনো ধরনের অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা রোধে আইনটি বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। প্রস্তাবিত আইনের খসড়ায় উল্লেখ করা হয়, সরকারি চিকিৎসকসহ সেবাদানকারী কেউ অফিস সময়ে বেসরকারিভাবে চিকিৎসাসেবা প্রদান করতে পারবেন না। এই বিধি লংঘন করলে কমপক্ষে এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড অথবা ছয় মাসের কারাদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন দোষী ব্যক্তি।
গত দু’দশকে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে কয়েক হাজার বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান। স্বাস্থ্য অধিদফতরের ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেম (এমআইএস) প্রণীত হেলথ বুলেটিন ২০১৪-এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী বর্তমানে দেশে বৈধ রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত ২ হাজার ৯৮৩টি হাসপাতাল ও ক্লিনিক এবং ৫ হাজার ২২০টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। সংশ্লিষ্টদের মতে, অবৈধভাবে গড়ে ওঠা হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সংখ্যা বৈধ সংখ্যার চেয়েও অনেক বেশি। তবে এসব বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মান নিয়ন্ত্রণে যুগোপযোগী আইন নেই।
জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানান, বেসরকারি খাতের এতসংখ্যক প্রতিষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য দেশে উপযুক্ত আইন নেই। বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইন প্রণয়নে বেশ কয়েকবার উদ্যোগ নেয়া হলেও নীতিনির্ধারকদের অনেকের স্বার্থ বিঘ্নিত হতে পারে- এমন আশংকায় আইনটি অদ্যাবধি আলোর মুখ দেখেনি।
৩৪ বছরের পুরনো ‘দ্য মেডিকেল প্র্যাকটিস অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিকস অ্যান্ড ল্যাবরেটরিজ (রেগুলেশনস) অর্ডিন্যান্স, ১৯৮২’-এর অধীনে বর্তমানে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালিত হয়। স্বাস্থ্য অধিদফতরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখার সংশ্লিষ্টরা জানান, বিজ্ঞানের অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে ছোট-বড় হাসপাতালে বিভিন্ন বিশেষায়িত (আইসিইউ, সিসিইউ, এনআইসিইউ) চিকিৎসাসেবা ও উন্নতমানের চিকিৎসা সরঞ্জামাদি স্থাপন করা হচ্ছে। এই পুরনো অধ্যাদেশ দিয়ে কোনোভাবেই এসব প্রতিষ্ঠানের মনিটরিং ও সুপারভিশন সম্ভব নয়।
অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, বিগত এক বছরে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে দেড় শাতাধিক হাসপাতালে জরিমানা করেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গেছে, হাসপাতালগুলোর নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ), করনারি কেয়ার ইউনিট (সিসিইউ), এইচডিইউ, এনআইসিইউ, ডায়ালিসিস ইত্যাদি বিভাগের লাইসেন্স নেই। এমনকি ক্লিনিক এবং ল্যাবের লাইসেন্সও মেয়াদ উত্তীর্ণ। এ ছাড়া হাসপাতাল ফার্মেসিগুলোতে মেডিকেল ডিভাইস ও সার্জিক্যাল অ্যাপেরাটাসের ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন রেজিস্ট্রেশন (ডিএআর) এবং প্রেমিসেস লাইসেন্স নেই। এমনকি এসব প্রতিষ্ঠানে ব্লাড ব্যাংকের লাইসেন্স থাকে না।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, ২০০৪ সালে তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইনটি জাতীয় সংসদে উত্থাপিত হওয়ার শেষ মুহূর্তে ফেরত আসে। এরপর ড. ফখরুদ্দীন আহমেদের নেতৃত্বাধীন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আইনটি প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের ২০০৯ থেকে ২০১৪ সালের প্রথম দফার শাসনামলে আইনটি খসড়া প্রণীত হয়। কিন্তু কোনো এক অদৃশ্য কারণে তা আর আলোর মুখ দেখেনি।
অভিযোগ রয়েছে, বেশিরভাগ বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারই চলছে ‘ফ্রি স্টাইলে’। এগুলোর অধিকাংশরই মালিকানার সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদ ও চিকিৎসক নেতারা জড়িত। ফলে আইন প্রণয়ন বিভিন্ন সময় বাধাগ্রস্ত হয়েছে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে শয্যা বাড়ানো থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও অস্ত্রোপচার বাবদ অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে বেসরকারি সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো।
এ ছাড়া স্বাস্থ্য অধিদফতরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখা থেকে লাইসেন্স প্রদান করা হলেও প্রয়োজনীয় জনবল সংকটের দোহাই দিয়ে সিংহভাগ প্রতিষ্ঠানই পরিদর্শন করা হয় না। ফলে সাধারণ রোগীদের অহেতুক গুনতে হচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা। অভিযোগ রয়েছে, সরকারের সংশ্লিষ্টদের বিভিন্নভাবে ‘ম্যানেজ’ করে নির্বিঘেœ যাবতীয় অবৈধ কার্যক্রম পরিচালনা করছে অধিকাংশ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার।
জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) অধ্যাপক ডা. শামিউল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, রোগী ও ডাক্তার উভয়ের নিরাপত্তায় একটি যুগোপযোগী আইন প্রয়োজন। আইন অপরাধ প্রশমন করে। তবে অবশ্যই রোগী ও চিকিৎসকবান্ধব হতে হবে।
সামগ্রিক বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিকার আন্দোলন জাতীয় কমিটির সভাপতি ও বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ডা. রশীদ-ই মাহবুব যুগান্তরকে বলেন, বেসরকারি চিকিৎসাসেবা আইন প্রণয়নে বিভিন্ন সরকারের আমলে উদ্যোগ নেয়া হলেও বাস্তবায়ন হয়নি। খসড়া আইনটি প্রণীত হলেও বহু মাস ধরে তা মন্ত্রণালয়ে পড়ে আছে। তবে এ মাসে যদি এটি মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয় তবে ভালো কথা। খসড়া আইনের বিভিন্ন বিষয়ে মতামত প্রদান না করলেও মুক্তিযোদ্ধা ও দরিদ্র রোগীদের বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা প্রদানের বিষয়টি তিনি আরও সুনির্দিষ্ট করার প্রয়োজন বলে মনে করেন। কারণ কনসালটেন্ট ফিস, অপারেশন চার্জ, অ্যানেসথেশিয়া চার্জ ইত্যাদি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বহন করতে হবে কিনা সে বিষয়টি স্পষ্ট করতে হবে।
  - See more at: http://www.jugantor.com/online/national/2016/05/25/14014/%E0%A6%9A%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A7%8E%E0%A6%B8%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%85%E0%A6%AC%E0%A6%B9%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BF-%E0%A7%AB-%E0%A6%AC%E0%A6%9B%E0%A6%B0-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A6%A3%E0%A7%8D%E0%A6%A1#sthash.8JDrCzOX.dpuf