Saturday 16th of December 2017 07:29:10 PM
 
  Top News:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণহারে দ্বিতীয়, তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে----মো:নাসির  |  দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ৫টি সহজ উপায়  |  ৫ মিনিটের কম সময়ে এসিডিটির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়  |  Beat Diabetes: 4 Ways to Prevent Type 2 Diabetes  |  নারীদের সফলতার পেছনে রয়েছে এই ৩টি কারণ  |  পাঁচ বদভ্যাসে ক্ষুধা নষ্ট  |  এই খাবারগুলো খালি পেটে খাবেন না  |  রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার এ কারণটি জানেন কি?  |  কম খরচে বিদেশ ভ্রমণে এশিয়ার সেরা ৭  |  শুধু ছেলেরাই নয়, মেয়েদেরকেও দিতে হবে প্রেমের প্রস্তাব   |  উৎকৃষ্ট সব অভ্যাস যাতে মেলে সুখ  |  যে ৪টি কারণে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যায়  |  মেঘদূত - জেবু নজরুল ইসলাম  |  3 Things Not To Say To Your Toddler  |   Men lose their minds speaking to pretty women  |  Lessons From a Marriage  |  চুইং গামে কী রয়েছে জানেন কি?  |  নিজেই তৈরি করে নিন দারুচিনি দিয়ে মাউথ ওয়াশ  |  সুস্থ থাকুন বৃষ্টি-বাদলায়  |  অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি সামলে উঠুন ৪টি উপায়ে  |  
 
 

অ্যাপল সাইডার ভিনেগারের ৫টি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

May 26, 2016, 4:08 AM, Hits: 320

 

এনজেবিডি নিউজ : অ্যাপল সাইডার ভিনেগার বহু বছর থেকেই প্রাকৃতিক প্রতিকার হিসেবে মানুষ ব্যবহার করে আসছে। প্রাকৃতিক নিরাময়ের সবচেয়ে ভালো উৎস ও এটি। ক্ষতিকর বিষাক্ত উপাদান শরীর থেকে বাহির করে দিতে সাহায্য করে অ্যাপল সাইডার ভিনেগার। কোলেস্টেরল ও ব্লাড প্রেসার কমতে সাহায্য করে অ্যাপল সাইডার ভিনেগার। এছাড়াও এটি অ্যান্টিওক্সিডেন্ট হিসেবে ফ্রি র‍্যাডিকেলের সাথে যুদ্ধ করে। ফ্রি র‍্যডিকেল বিভিন্ন প্রকার অসুস্থতা, বয়স বৃদ্ধি এবং বয়সজনিত বিভিন্ন রোগের কারণ। এতোসব উপকারিতা সত্ত্বেও দীর্ঘদিন ও অতিরিক্ত পরিমাণে অ্যাপল সাইডার ভিনেগার ব্যবহার করলেও কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়।

কিন্তু চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই, কারণ এই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলো হালকা ধরণের এবং খুব সহজেই এর প্রতিকার করা যায়। আসুন তাহলে জেনে নেয়া যাক অ্যাপল সাইডার ভিনেগার ব্যবহারের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো ও এর প্রতিরোধের উপায় সম্পর্কে।

১। দাঁতের এনামেলকে দুর্বল করে দেয়

যেহেতু অ্যাপল সাইডার ভিনেগারে উচ্চমাত্রার এসিডিক উপাদান থাকে সেহেতু এটি খুব ঘন ঘন ব্যবহার করলে দাঁতের এনামেলকে দুর্বল করে দিতে পারে। এটি প্রতিরোধের জন্য সরাসরি অ্যাপল সাইডার ভিনেগার পান না করে পানির সাথে মিশিয়ে পান করুন অথবা স্ট্র দিয়ে পান করুন যাতে দাঁতের সংস্পর্শে না লাগে। এটি পান করার পর পানি দিয়ে কুলকুচি করে নিন যাতে মুখে এসিড লেগে না থাকে।

২। গলা ও ত্বকের ক্ষতি করে

অতিরিক্ত মাত্রায় অ্যাপল সাইডার ভিনেগার সেবন করলে তা গলা ও ত্বকের ক্ষতির কারণ হয়। তাই সব সময় অ্যাপল সাইডার ভিনেগার পান করার পূর্বে বা ত্বকে ব্যবহারের পূর্বে পানিতে মিশিয়ে নিন। অ্যাপল সাইডার ভিনেগারের পিল এর পরিবর্তে তরল আপেল সাইডার ভিনেগার ব্যবহার করুন। যদি ট্যাবলেট সেবন করেন তাহলে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।

৩। রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা এবং হাড়ের ঘনত্ব কমায়

অ্যাপল সাইডার ভিনেগার অতিরিক্ত সেবন করলে রক্তের পটাশিয়ামের মাত্রা কমে যায় যাকে হাইপোক্যালেমিয়া বলে এবং হাড়ের ঘনত্ব ও কমে যায়। আপনি যদি অস্টিওপোরোসিসের রোগী হন বা পটাসিয়াম নিয়ন্ত্রণের ঔষধ সেবন করে থাকেন তাহলে অ্যাপল সাইডার ভিনেগার গ্রহণের মাত্রা কমিয়ে দিতে পারেন অথবা এড়িয়ে যেতে পারেন।

৪। বুকজ্বালা ও গ্যাস্ট্রোইন্টেস্টাইনাল সমস্যা তৈরি করে

অ্যাপল সাইডার ভিনেগার যেহেতু ডিটক্সিফায়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয় তাই কিছু মানুষের ক্ষেত্রে বুক জ্বালাপোড়া করা, ডায়রিয়া বা বদ হজমের সমস্যা হতে পারে যা সাধারণ ডিটক্স প্রক্রিয়ারই একটি অংশ। যদি এই উপসর্গগুলো সময়ের সাথে সাথে না চলে যায় তাহলে অ্যাপল সাইডার ভিনেগারের মাত্রা কমিয়ে দিন বা ব্যবহার বন্ধ করে দিন।

৫। ঔষধের মিথস্ক্রিয়া

যদি আপনি নিয়মিত ঔষধ গ্রহণ করে থাকেন তাহলে অ্যাপল সাইডার ভিনেগার গ্রহণের ক্ষেত্রে সতর্কতা প্রয়োজন। আপেল সাইডার ভিনেগার আপনার দেহ থেকে টক্সিন বাহির হয়ে যেতে সাহায্য করে। এটি আপনাকে ঘন ঘন বাথরুম ব্যবহারের তাগাদা দেয়। যদি আপনি ইতিমধ্যেই ল্যাসিক্স বা ক্লোরোথায়াজাইড জাতীয় ঔষধ সেবন করে থাকেন তাহলে এর পাশাপাশি অ্যাপল সাইডার ভিনেগার গ্রহণ করলে আপনার কিডনি ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। তাই এ বিষয়ে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করা প্রয়োজন।

এছাড়াও কারো কারো ক্ষেত্রে অতিরিক্ত অ্যাপল সাইডার ভিনেগার গ্রহণের ফলে বমি বমি ভাব, মাথাব্যথা, চুলকানি, মাড়িতে জ্বলুনি ও পেটেব্যথার মত সমস্যাগুলো হতে পারে। এছাড়াও বিরল ক্ষেত্রে মুখ ফুলে যাওয়া, শ্বাসকষ্ট ও ত্বক লাল হয়ে যাওয়া বা র‍্যাশের সমস্যা হতে পারে।