Saturday 16th of December 2017 07:32:31 PM
 
  Top News:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণহারে দ্বিতীয়, তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে----মো:নাসির  |  দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ৫টি সহজ উপায়  |  ৫ মিনিটের কম সময়ে এসিডিটির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়  |  Beat Diabetes: 4 Ways to Prevent Type 2 Diabetes  |  নারীদের সফলতার পেছনে রয়েছে এই ৩টি কারণ  |  পাঁচ বদভ্যাসে ক্ষুধা নষ্ট  |  এই খাবারগুলো খালি পেটে খাবেন না  |  রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার এ কারণটি জানেন কি?  |  কম খরচে বিদেশ ভ্রমণে এশিয়ার সেরা ৭  |  শুধু ছেলেরাই নয়, মেয়েদেরকেও দিতে হবে প্রেমের প্রস্তাব   |  উৎকৃষ্ট সব অভ্যাস যাতে মেলে সুখ  |  যে ৪টি কারণে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যায়  |  মেঘদূত - জেবু নজরুল ইসলাম  |  3 Things Not To Say To Your Toddler  |   Men lose their minds speaking to pretty women  |  Lessons From a Marriage  |  চুইং গামে কী রয়েছে জানেন কি?  |  নিজেই তৈরি করে নিন দারুচিনি দিয়ে মাউথ ওয়াশ  |  সুস্থ থাকুন বৃষ্টি-বাদলায়  |  অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি সামলে উঠুন ৪টি উপায়ে  |  
 
 

শরীরী খেলার বিতর্কিত পাঁচ রিয়্যালিটি শো

May 26, 2016, 10:48 PM, Hits: 313

 

এনজেবিডি নিউজ : টিভি পর্দায় উদ্যাম শরীরী খেলার হাতছানি। কখনও চার দেয়ালের গোপন কথা তুলে ধরেছেন সবার সম্মুখে। কখন বন্যতায় মাতোয়ারা নগ্ন শরীর মেলে ধরেছেন টিভি পর্দায়। কিন্তু ড্রয়িংরুমে যৌনতার প্রবেশ মানা। তাই মাঝপথেই কখনও কখনও থমকে যেতে হয়েছে ওই সব প্রচারে আসা রিয়্যালিটি শোগুলো। এ ধরনের বন্ধ হয়ে যাওয়া জনপ্রিয় পাঁচটি রিয়্যালিটি শো নিয়ে আজকের আয়োজন

 
সেক্স বক্স: ইংরেজি ভাষায় বেশ আলোচিত শো এটি। সেক্সবিষয়ক শো হওয়ায় দর্শকদের কাছে অল্পদিনেই ব্যাপক সাড়া ফেলেছিল শোটি। এতে অংশগ্রহণের জন্য নবদম্পতিদের আমন্ত্রণ জানান হতো। এখানে একজন সেক্স বিশেষজ্ঞও উপস্থিত থাকতেন। সেক্স বক্সের সেটে রাখা হতো একটি বড় সাইজের বক্স। যেখানে নববিবাহিত দম্পতিরা যৌনতায় মেতে উঠত। যৌনকর্ম শেষে তাদের ভালোলাগা-খারাপলাগা বিষয়গুলো সেক্স বিশেষজ্ঞের কাছে জানাতেন এবং তিনি দম্পতিদের সেক্স-লাইফ আরও সুন্দর করতে দারুণ দারুণ টিপস দিয়ে থাকেন। এটি প্রচার হতো চ্যানেল ফোর-এ।

নেবারস উইথ বেনিফিটস: মার্কিন প্রাপ্তবয়স্ক দর্শকদের কাছে শোটি দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। কিন্তু বেশি দূর এগোতে পারেনি টিভি শোটি। ২০১৫ সালে মাত্র দুটি পর্ব দেখানোর পরই বন্ধ করে দেয়া হয় এটি। মূলত আমেরিকান কমিউনিটি সুইং বল দম্পতিদের নিয়ে তৈরি করা হয়েছিল নেবারস উইথ বেনিফিটস। এখানে তাদের সেক্সবিষয়ক নানা ক্রিয়াকর্ম দেখান হতো।

ডেটিং নেকেড: মার্কিনিদের কাছে সেক্সবিষয়ক দারুণ জনপ্রিয় একটি রিয়্যালিটি শো ছিল এটি। তাই ২০১৪ সালে টিভি পর্দায় অনুষ্ঠানটি আসার পর থেকেই হুড়মুড় করে বেড়ে যায় এটির দর্শক। মূলত ‘কাছে আসার প্রথম দেখাই হোক আদি সত্তায়’- এ স্লোগানেই টিভি পর্দায় আসে ডেটিং নেকেড নামের এই শোটি। এ অনুষ্ঠানে দু’জন অপরিচিত ছেলে-মেয়ের মধ্যে প্রথমবার দেখা হবে। কিন্তু শর্তানুযায়ী তাদের শরীরে কোনো ধরনের বস্ত্র থাকতে পারবে না। এরপর তারা নিজেদের মতো করে পরিচিত হবেন এবং স্টেজেই নানা ক্রিয়াকর্ম প্রদর্শন করবেন। বিতর্কের কারণে এটিও বন্ধ হয়ে যায়।

জিগলোস: মার্কিন রোমাঞ্চকর টিভি শো এটি। যা প্রচারে আসে ২০১১ সালে। এটি আমেরিকার পাঁচজন জিগলোদের প্রতিদিনকার জীবনযাপন নিয়ে তৈরি করা হয়েছিল। যেখানে জিগলোদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড, তাদের পছন্দ-অপছন্দ ও আকর্ষণের বিভিন্ন দিক এমন সেক্সের বিষয়গুলোও খোলামেলাভাবে উপস্থাপন করা হতো।

টোটালি ন্যুড: ‘নো বয়েস’ স্লোগান নিয়ে ২০০৯ সালে প্রচারে আসে অনুষ্ঠানটি। ছেলেদের কোনো অংশগ্রহণই ছিল না এতে। সাধারণত একদল মেয়ে নিয়ে নানা ধরনের উত্তেজনাময় কর্মকাণ্ড দেখান হতো। শো’টির প্রথম পর্ব প্রচার হওয়ার পরই মার্কিন মুলুকসহ বিশ্বব্যাপী দর্শক বাড়তে থাকে এর। মেয়েদের সেক্সি কর্মকাণ্ডই ছিল শো’টির প্রধান আকর্ষণ, যা বেশি দূর এগোতে পারেনি। কয়েক পর্ব প্রচারের পরই বন্ধ হয়ে যায় টোটালি ন্যুড। তবে শো’টিতে ছেলেদের উপস্থিতি না থাকলেও এখানে দেখানো মেয়েদের কর্মকাণ্ড ছেলেদের মাথা খারাপই করে দিত। তাই পর্দায় অনুষ্ঠানটি দেখার জন্য মেয়েদের চেয়ে ছেলেদের আগ্রহই বেশি লক্ষ্য করা গেছে।

কান উৎসব : লাল পোশাকেই শেষ হল লালগালিচার আসর

রঙ-বেরঙের বাহারি পোশাকে লাল গালিচায় হাঁটার আনন্দই আলাদা। আর কান উৎসবের সবচেয়ে বড় জৌলুস হল এই রেড কাপের্ট বা লালগালিচা। এবারের কান উৎসব গত ১১ মে উদ্বোধনী দিন থেকে শুরু করে ২২ মে শেষ দিন পর্যন্ত তামাম দুনিয়ার নামি-দামি তারকাদের পদভারে মুখরিত ছিল। উৎসবে চোখে পড়ার মতো দৃশ্য ছিল তারকাদের লাল পোশাক। বিশেষ করে সমাপনী দিনে সেই মাত্রাটা একটু বেশিই ছিল। লাল পোশাকেই বিশ্বের বড় বড় সেলিব্রেটিরা মাড়িয়েছেন কানের লালগালিচা। এমন পোশাকে গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে ওঠার সিঁড়িটা ছিল যেন কোনো রক্তিম সূর্য। 

টিভি পর্দায় উদ্যাম শরীরী খেলার হাতছানি। কখনও চার দেয়ালের গোপন কথা তুলে ধরেছেন সবার সম্মুখে। কখন বন্যতায় মাতোয়ারা নগ্ন শরীর মেলে ধরেছেন টিভি পর্দায়। কিন্তু ড্রয়িংরুমে যৌনতার প্রবেশ মানা। তাই মাঝপথেই কখনও কখনও থমকে যেতে হয়েছে ওই সব প্রচারে আসা রিয়্যালিটি শোগুলো। এ ধরনের বন্ধ হয়ে যাওয়া জনপ্রিয় পাঁচটি রিয়্যালিটি শো নিয়ে আজকের আয়োজন
 
সেক্স বক্স: ইংরেজি ভাষায় বেশ আলোচিত শো এটি। সেক্সবিষয়ক শো হওয়ায় দর্শকদের কাছে অল্পদিনেই ব্যাপক সাড়া ফেলেছিল শোটি। এতে অংশগ্রহণের জন্য নবদম্পতিদের আমন্ত্রণ জানান হতো। এখানে একজন সেক্স বিশেষজ্ঞও উপস্থিত থাকতেন। সেক্স বক্সের সেটে রাখা হতো একটি বড় সাইজের বক্স। যেখানে নববিবাহিত দম্পতিরা যৌনতায় মেতে উঠত। যৌনকর্ম শেষে তাদের ভালোলাগা-খারাপলাগা বিষয়গুলো সেক্স বিশেষজ্ঞের কাছে জানাতেন এবং তিনি দম্পতিদের সেক্স-লাইফ আরও সুন্দর করতে দারুণ দারুণ টিপস দিয়ে থাকেন। এটি প্রচার হতো চ্যানেল ফোর-এ।

নেবারস উইথ বেনিফিটস: মার্কিন প্রাপ্তবয়স্ক দর্শকদের কাছে শোটি দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। কিন্তু বেশি দূর এগোতে পারেনি টিভি শোটি। ২০১৫ সালে মাত্র দুটি পর্ব দেখানোর পরই বন্ধ করে দেয়া হয় এটি। মূলত আমেরিকান কমিউনিটি সুইং বল দম্পতিদের নিয়ে তৈরি করা হয়েছিল নেবারস উইথ বেনিফিটস। এখানে তাদের সেক্সবিষয়ক নানা ক্রিয়াকর্ম দেখান হতো।

ডেটিং নেকেড: মার্কিনিদের কাছে সেক্সবিষয়ক দারুণ জনপ্রিয় একটি রিয়্যালিটি শো ছিল এটি। তাই ২০১৪ সালে টিভি পর্দায় অনুষ্ঠানটি আসার পর থেকেই হুড়মুড় করে বেড়ে যায় এটির দর্শক। মূলত ‘কাছে আসার প্রথম দেখাই হোক আদি সত্তায়’- এ স্লোগানেই টিভি পর্দায় আসে ডেটিং নেকেড নামের এই শোটি। এ অনুষ্ঠানে দু’জন অপরিচিত ছেলে-মেয়ের মধ্যে প্রথমবার দেখা হবে। কিন্তু শর্তানুযায়ী তাদের শরীরে কোনো ধরনের বস্ত্র থাকতে পারবে না। এরপর তারা নিজেদের মতো করে পরিচিত হবেন এবং স্টেজেই নানা ক্রিয়াকর্ম প্রদর্শন করবেন। বিতর্কের কারণে এটিও বন্ধ হয়ে যায়।

জিগলোস: মার্কিন রোমাঞ্চকর টিভি শো এটি। যা প্রচারে আসে ২০১১ সালে। এটি আমেরিকার পাঁচজন জিগলোদের প্রতিদিনকার জীবনযাপন নিয়ে তৈরি করা হয়েছিল। যেখানে জিগলোদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড, তাদের পছন্দ-অপছন্দ ও আকর্ষণের বিভিন্ন দিক এমন সেক্সের বিষয়গুলোও খোলামেলাভাবে উপস্থাপন করা হতো।

টোটালি ন্যুড: ‘নো বয়েস’ স্লোগান নিয়ে ২০০৯ সালে প্রচারে আসে অনুষ্ঠানটি। ছেলেদের কোনো অংশগ্রহণই ছিল না এতে। সাধারণত একদল মেয়ে নিয়ে নানা ধরনের উত্তেজনাময় কর্মকাণ্ড দেখান হতো। শো’টির প্রথম পর্ব প্রচার হওয়ার পরই মার্কিন মুলুকসহ বিশ্বব্যাপী দর্শক বাড়তে থাকে এর। মেয়েদের সেক্সি কর্মকাণ্ডই ছিল শো’টির প্রধান আকর্ষণ, যা বেশি দূর এগোতে পারেনি। কয়েক পর্ব প্রচারের পরই বন্ধ হয়ে যায় টোটালি ন্যুড। তবে শো’টিতে ছেলেদের উপস্থিতি না থাকলেও এখানে দেখানো মেয়েদের কর্মকাণ্ড ছেলেদের মাথা খারাপই করে দিত। তাই পর্দায় অনুষ্ঠানটি দেখার জন্য মেয়েদের চেয়ে ছেলেদের আগ্রহই বেশি লক্ষ্য করা গেছে।

কান উৎসব : লাল পোশাকেই শেষ হল লালগালিচার আসর

রঙ-বেরঙের বাহারি পোশাকে লাল গালিচায় হাঁটার আনন্দই আলাদা। আর কান উৎসবের সবচেয়ে বড় জৌলুস হল এই রেড কাপের্ট বা লালগালিচা। এবারের কান উৎসব গত ১১ মে উদ্বোধনী দিন থেকে শুরু করে ২২ মে শেষ দিন পর্যন্ত তামাম দুনিয়ার নামি-দামি তারকাদের পদভারে মুখরিত ছিল। উৎসবে চোখে পড়ার মতো দৃশ্য ছিল তারকাদের লাল পোশাক। বিশেষ করে সমাপনী দিনে সেই মাত্রাটা একটু বেশিই ছিল। লাল পোশাকেই বিশ্বের বড় বড় সেলিব্রেটিরা মাড়িয়েছেন কানের লালগালিচা। এমন পোশাকে গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে ওঠার সিঁড়িটা ছিল যেন কোনো রক্তিম সূর্য। - See more at: http://www.jugantor.com/online/entertainment/2016/05/26/14181/%E0%A6%B6%E0%A6%B0%E0%A7%80%E0%A6%B0%E0%A7%80-%E0%A6%96%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A4%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A6%A4-%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%9A-%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%AF%E0%A6%BC%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A6%BF%E0%A6%9F%E0%A6%BF-%E0%A6%B6%E0%A7%8B#sthash.46UnaH9S.dpuf