Monday 18th of December 2017 03:50:40 AM
 
  Top News:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণহারে দ্বিতীয়, তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে----মো:নাসির  |  দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ৫টি সহজ উপায়  |  ৫ মিনিটের কম সময়ে এসিডিটির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়  |  Beat Diabetes: 4 Ways to Prevent Type 2 Diabetes  |  নারীদের সফলতার পেছনে রয়েছে এই ৩টি কারণ  |  পাঁচ বদভ্যাসে ক্ষুধা নষ্ট  |  এই খাবারগুলো খালি পেটে খাবেন না  |  রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার এ কারণটি জানেন কি?  |  কম খরচে বিদেশ ভ্রমণে এশিয়ার সেরা ৭  |  শুধু ছেলেরাই নয়, মেয়েদেরকেও দিতে হবে প্রেমের প্রস্তাব   |  উৎকৃষ্ট সব অভ্যাস যাতে মেলে সুখ  |  যে ৪টি কারণে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যায়  |  মেঘদূত - জেবু নজরুল ইসলাম  |  3 Things Not To Say To Your Toddler  |   Men lose their minds speaking to pretty women  |  Lessons From a Marriage  |  চুইং গামে কী রয়েছে জানেন কি?  |  নিজেই তৈরি করে নিন দারুচিনি দিয়ে মাউথ ওয়াশ  |  সুস্থ থাকুন বৃষ্টি-বাদলায়  |  অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি সামলে উঠুন ৪টি উপায়ে  |  
 
 

জীবনযাপনে বড় পরিবর্তন ছাড়াই পরিবেশসম্মত জীবনধারণের ৫ উপায়

May 30, 2016, 2:39 AM, Hits: 337

 

এনজেবিডি নিউজ :  আপনি যদি সুস্থ জীবনযাপন করেন তাহলে পৃথিবী ঠিক থাকবে। আর এতেই পরিবেশ রক্ষা করা সম্ভব হবে। এ কারণে জীবনযাপনে কয়েকটি সহজ পরিবর্তন আনার কথা বলছেন বিশেষজ্ঞরা। এ লেখায় তুলে ধরা হলো তেমন পাঁচটি পরিবর্তনের কথা। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে হিন্দুস্তান টাইমস।
১. তাজা খাবার খান
স্থানীয়ভাবে প্রাপ্ত তাজা ফলমূল ও শাকসবজি খাওয়াই পরিবেশের জন্য সবচেয়ে ভালো। কারণ দূর-দূরান্ত থেকে আমদানি করা খাদ্যদ্রব্য প্যাকেট করতে যেমন নানা ধরনের প্লাস্টিক ও পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর প্যাকেজিং ব্যবহৃত হয় তেমন তা পরিবহনেও বহু জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়াতে হয়। খাবার প্যাকেট ও প্রক্রিয়াজাত করার জন্য তাতে প্রায়ই ক্ষতিকর নানা রাসায়নিক প্রয়োগ করা হয়। এগুলো স্বাস্থ্যের মারাত্মক ক্ষতি করে এবং ক্যান্সারসহ নানা রোগের কারণ হয়। তাই স্থানীয় পর্যায়ে উৎপাদিত ও তাজা খাবার খাওয়াই সবচেয়ে ভালো।
২. মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ ব্যবহার করুন বিচক্ষণতার সঙ্গে
স্মার্টফোন, ট্যাব ও ল্যাপটপের মতো স্মার্ট যন্ত্রপাতি ব্যবহার করুন বিচক্ষণতার সঙ্গে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত এসব যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা ঠিক নয়। এছাড়া যথাসম্ভব কম ব্যবহার করুন এসব যন্ত্রপাতি। কাজ শেষে সর্বদা বন্ধ করে রাখুন যাবতীয় যন্ত্রপাতি। এতে আপনার বিদ্যুৎ বিল যেমন সাশ্রয় হবে তেমন পরিবেশেরও উপকার হবে।
৩. স্মার্ট যাতায়াত
যাতায়াতে সর্বদা পরিবেশসম্মত যানবাহন ব্যবহার করুন। কাছাকাছি দূরত্বে পায়ে হেঁটে যাতায়াত করুন। এছাড়া সাইকেল এবং এ ধরনের পরিবেশসম্মত যানবাহন ব্যবহার করুন। দূরবর্তী স্থানে যাতায়াতে গণপরিবহন ব্যবহার করুন যেন পরিবেশের ক্ষতি কম হয়। এছাড়া গাড়ি চালালে তা যেন বাড়তি দূষণ না করে সেজন্য মনোযোগী হোন।
৪. কাজ করুন বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে
কাগজ অপচয় বন্ধ করুন। প্রতি বছর আমরা কাগজ বানানোর জন্য বহু গাছ কেটে ফেলি, যা পরিবেশের ক্ষতি করে। এ ক্ষতি এড়াতে সতর্ক হোন। পুরনো কাগজ থেকে পুনরায় রিসাইকল করে কাগজ তৈরি করুন। পুরনো বাল্বের বদলে আধুনিক ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী এলইডি বাতি ব্যবহার করুন। আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করুন, যেগুলো কম বিদ্যুৎ ব্যবহার করে।
৫. পানির অপচয় রোধ করুন
পানি খুবই মূল্যবান সম্পদ। তাই পানির অপচয় রোধ করুন। বিশুদ্ধ পানি সংরক্ষণ করুন এবং তা প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহার করুন। একটি পানির কল থেকে ফোটা ফোটা পানি পড়লে দিনশেষে তা ১০ লিটার পানি অপচয় করতে পারে। তাই এসব ব্যাপারে সচেতন হোন। পানি দূষণ করে এমন পদার্থ ব্যবহার করা বাদ দিন। শিল্পকারখানার বর্জ্য যেন নদী-নালা বা খাল-বিলে না যায় সেজন্য সচেতন হোন।